রাজ্য

‘অন্যায়ের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে’, বার্তা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের

আজ সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেসের প্রতিষ্ঠা দিবস। ১৯৯৮-এর এই দিনেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তৃণমূল কংগ্রেস তৈরি করেছিলেন। বাংলার সীমা ছাড়িয়ে তৃণমূল আজ সর্বভারতীয় রাজনীতিতেও যথেষ্ট প্রাসঙ্গিকতা লাভ করেছে।

দলের প্রতিষ্ঠা দিবসে কর্মীদের ঐক্যবদ্ধ থাকতে বার্তা তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। দলের কর্মী, সমর্থকদের নতুন বছরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন তৃণমূল সুপ্রিমো।

এদিন টুইটে তৃণমূলনেত্রী লিখেছেন, ‘তৃণমূল কংগ্রেসের প্রতিষ্ঠা দিবসে সমস্ত কর্মী, সমর্থক এবং মা-মাটি-মানুষ পরিবারের সদস্যদের আমার শুভেচ্ছা জানাই।

আমাদের যাত্রা শুরু হয়েছিল ১৯৯৮-এর ১ জানুয়ারি। তারপর থেকে আমরা জনগণের সেবা এবং তাঁদের কল্যাণ নিশ্চিত করার জন্য আমাদের প্রচেষ্টায় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’

আরও পড়ুন: নতুন বছরের শুভেচ্ছা জানিয়ে পড়ুয়াদের গ্রিটিংস কার্ড দিলেন মুখ্যমন্ত্রী

দ্বিতীয় টুইটে জননেত্রী লিখেছেন, ‘আরও একটি নতুন বছরে আমরা পা রাখলাম। আসুন সব অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর লড়াইয়ে ঐক্যবদ্ধ থাকার অঙ্গীকার করি।

আসুন আমরা একে অপরের সঙ্গে সহানুভূতি ও শ্রদ্ধার আচরণ করি। আসুন দেশের যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে কাজ করি। আপনাদের আশীর্বাদের জন্য ধন্যবাদ।’

কংগ্রেস ভেঙে তৃণমূল তৈরি করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ১৯৯৮ থেকে পথ চলা শুরু। একটানা কয়েক বছর বামেদের সঙ্গে লড়ে শেষমেশ ২০১১ সালে রাজ্যে ক্ষমতা দখল করেছে তৃণমূল।

তারপর থেকে জোড়াফুলের বিজয়রথ আটকায়নি। ২০২১-এ ফের একবার রাজ্য শাসনের ভার পেয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল।

বাংলার সীমা ছাড়িয়ে পড়শি ত্রিপুরা, অসমে সংগঠন সাজাচ্ছে তৃণমূল। গোয়াতেও দলের সংগঠন সাজাতে যাবতীয় উদ্যোগ নিচ্ছে ঘাসফুল শিবির। শনিবার দলের প্রতিষ্ঠা দিবস উপলক্ষে রাজ্যজুড়ে নানা অনুষ্ঠান পালন তৃণমূলের। দলের কার্যালয়গুলিতে পতাকা উত্তোলন কর্মসূচির পাশাপাশি একাধিক সামাজিক কর্মসূচিও নেওয়া হয়েছে।

 

আরও পড়ুন ::

Back to top button