রাজ্য

কল্যাণী এইমসে নিয়োগ দুর্নীতি : বিজেপি বিধায়কের জেরা হবে সিআইডি দফতরে

কল্যাণী এইমস নিয়োগ দুর্নীতি (AIIMS Scam) মামলায় এবার সিআইডির তৎপরতা৷ বাঁকুড়ার বিজেপি বিধায়ক নীলাদ্রিশেখর দানাকে দুই দফায় জিজ্ঞাসাবাদ করে অসঙ্গতি। এবার বিধায়ককে আগামী শুক্রবার ভবানীভবনে তলবে করল সিআইডি৷

সিআইডি সূত্রে খবর, এর আগে দুই দফায় বাঁকুড়ার বিধায়কের বাড়িতে তল্লাশি অভিযান চালিয়েছিল সিআইডি৷ সেখানে বিধায়ক কন্যা মৈত্রী দানাকে মূলত প্রশ্ন করা হয়, তাঁর বাবা কল্যাণী এইমসে চাকরির জন্য সুপারিশ করেছিল কিনা? কিন্তু মৈত্রী অস্বীকার করেন। দানা জানিয়েছিল তাঁর বাবা যায়নি। অভিযোগ, বেসরকারি নিয়োগ সংস্থা এবং কল্যাণী এইমসে গিয়ে সিআইডি অফিসাররা জানিয়েছেন, নিয়োগের জন্য সুপারিশ করা হয়েছিল। তাই নীলাদ্রিশেখর দানাকে ফের জিজ্ঞাসাবাদ করতে চায় সিআইডি।

সোমবারেও বাঁকুড়ার বিধায়কের কন্যা মৈত্রী দানাকে আরও একদফা জিজ্ঞাসাবাদ করে সিআইডি৷ নিয়োগ কীভাবে হয়েছে? কী কী তথ্যের প্রয়োজন হয়েছিল? আর কারা যুক্ত গোটা বিষয়টার মধ্যে? সবটাই জানতে চাওয়া হয়েছে।

কল্যাণী এইমসে নিয়োগে দুর্নীতির কথা এর আগে উল্লেখ করেন মুর্শিদাবাদের এক ব্যক্তি। তাঁর অভিযোগ ছিল, স্কুল সার্ভিস কমিশনের মতো কল্যাণী এইমসে প্রভাব খাটিয়ে বেআইনি নিয়োগের অভিযোগে বিজেপির দুই সাংসদ, দুই বিধায়ক-সহ ৮ জনের নামে এফআইআর দায়ের করা হয়। তদন্তে নামে সিআইডি।

কল্যাণী এইমসে নিয়োগ-দুর্নীতির অভিযোগে এফআইআরে নাম রয়েছে বাঁকুড়ার বিজেপি সাংসদ ও কেন্দ্রীয় শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী সুভাষ সরকার, রানাঘাটের সাংসদ জগন্নাথ সরকার, বাঁকুড়ার বিজেপি বিধায়ক নীলাদ্রিশেখর দানা ও চাকদার বিধায়ক বঙ্কিম ঘোষ-সহ ৮ জনের। এর আগে চাকদার বিধায়ক বঙ্কিম ঘোষের পুত্রবধুকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছিল সিআইডি৷ এবার চাপ বাড়ছে বাঁকুড়ার বিজেপি বিধায়কের উপর৷

আরও পড়ুন ::

Back to top button