স্বাস্থ্য

গায়ের গন্ধই বলে দিতে পারে আপনার ডায়াবেটিস আছে কি না

ডায়াবেটিস এক ধরনের মেটাবলিক ডিজঅর্ডার রোগ। নিঃশব্দে শরীরের সব অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের কার্যক্ষমতা নষ্ট করে। মানুষ যখন খাবার গ্রহণ করে, তখন শরীরের প্যানক্রিয়াস থেকে ইনসুলিন নিঃসৃত হয়। ইনসুলিনের কাজ হলো যে খাবার খাওয়া হচ্ছে সেটির অতিরিক্ত গ্লুকোজ কমিয়ে দেওয়া। যখন ইনসুলিনের উৎপাদন কমে যায় বা ইনসুলিন উৎপাদন হওয়ার পরও যখন কাজ করতে পারে না, তখন শরীরে অতিরিক্ত গ্লুকোজ থাকে। সেই অবস্থাকেই বলা হয় ডায়াবেটিস।

নিয়ম মেনে খাবার, ওষুধ খেলে, শরীরচর্চা করলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকে। কিন্তু তা কোনও ভাবেই পুরোপুরি নিরাময় হয় না। প্রাথমিক ভাবে পিপাসা বেড়ে যাওয়া, ঘনঘন প্রস্রাবের বেগ, বার বার খিদে পাওয়া, পর্যাপ্ত ঘুমের পরেও ক্লান্ত বোধ করা, ওজন কমে যাওয়া, ত্বকে কালচে ভাব, ক্ষত না শুকোনোর মতো লক্ষণগুলিকে ডায়াবেটিসের কারণ বলে ধরা যেতে পারে। এ ছাড়াও গায়ের গন্ধ কিন্তু বলে দিতে পারে আপনার পাশে বসা ব্যক্তিটি ডায়াবেটিসে আক্রান্ত কি না। কারণ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তির রক্তে কিটোন অ্যাসিডের প্রাধান্য বেশি থাকে।

শরীরে পর্যাপ্ত পরিমাণে ইনসুলিন না থাকায় রক্তে থাকা শর্করা, শক্তি উৎপাদন করতে পারে না। শক্তি উৎপাদনের জন্য যকৃৎ ক্রমাগত স্নেহ জাতীয় পদার্থ ভাঙতে চেষ্টা করে। ফলস্বরূপ কিটোন নামক অ্যাসিড তৈরি হয়। রক্ত এবং প্রস্রাবেও বিপজ্জনক হারে বাড়তে থাকে এই অ্যাসিডের মাত্রা। রক্তে পিএইচের ভারসাম্যও বিঘ্নিত হয়।

আরও পড়ুন :: কীভাবে বুঝবেন, আপনার শরীর কিংবা মস্তিষ্ক অচল হতে চলেছে!

অত্যধিক হারে শরীরে কিটোন অ্যাসিড বেড়ে গেলে, তা সাধারণত শ্বাস-প্রশ্বাস, ঘাম এবং প্রসাবের গন্ধের মাধ্যমে জানান দেয়। কখনও ফলের, ঝাঁঝাল অ্যামোনিয়া বা মলের গন্ধ পাওয়াও অস্বাভাবিক নয়।

টাইপ১ ডায়াবিটিসে আক্রান্ত ব্যক্তিরা দীর্ঘ দিন গুরুতর অসুস্থ থাকলে, অস্ত্রোপচার হলে বা নিয়মিত ইনসুলিন না নিলে কিটোঅ্যাসিডোসিস হতে পারে।

টাইপ ২ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের কিটোঅ্যাসিডোসিস হয় না বললেই চলে। দীর্ঘ দিন ধরে রক্তে অনিয়ন্ত্রিত শর্করার মাত্রা কিটোঅ্যাসিডোসিসে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয়।

কিন্তু যাদের ডায়াবেটিস নেই, তাদেরও কিটোঅ্যাসিডোসিস হতে পারে। দীর্ঘ ক্ষণ না খেয়ে থাকলে শরীরে গ্লুকোজের অভাব দেখা দেয়। শক্তি উৎপাদনের জন্য শরীর বাধ্য হয়ে কিটোজেনেসিস প্রক্রিয়া শুরু করে।

আরও পড়ুন :: মৃত্যু ঝুঁকি কমাতে সপ্তাহে ৪ বার কাঁচা লঙ্কা খান

গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে, খাবারের তালিকায় সুষম এবং পরিমিত কার্বহাইড্রেড সমৃদ্ধ খাবার রক্তে শর্করার মাত্রা ঠিক রাখে। কিটোঅ্যাসিডোসিসে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনাও কমায়। চিনি, গুড়, মধু, গ্লুকোজ না খাওয়া। আমিষ বা প্রোটিন এবং চর্বি বা ফ্যাট স্বাভাবিক মাত্রায় গ্রহণ করা। সকালের নাস্তার সময় থেকে রাতে ঘুমাতে যাওয়ার পূর্ব পর্যন্ত প্রতি তিন থেকে সারে তিন ঘণ্টা পরপর খাবার খেতে হবে। ওষুধ ও খাবারের মধ্যে একটা সমন্বয় থাকতে হবে। শর্করা খাবার যেমন ভুসিযুক্ত আটার রুটি, লাল চাল, মাছ, মাংস, কলিজা, ডিম, ডাল, বাদাম, ভুট্টার খই, খেজুর আশযুক্ত শাকসবজি ও ফল খাওয়া যেতে পারে। যদি কারও খাবারে শর্করা বাড়ানোর প্রয়োজন হয় তাহলে এ ধরনের শর্করা দিয়ে বাড়ানো যেতে পারে। এতে ডায়াবেটিস তেমন বাড়বে না।

আরও পড়ুন ::

Back to top button