ওপার বাংলা

শেখ হাসিনার মন্ত্রীর গলায় চিনের বন্দনা – ভারত থেকে ফিরেই দুই নৌকায় পা দিয়ে চলছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী

ওয়েস্ট বেঙ্গল নিউজ ২৪

শেখ হাসিনার মন্ত্রীর গলায় চিনের বন্দনা - ভারত থেকে ফিরেই দুই নৌকায় পা দিয়ে চলছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী

দুই নৌকায় পা দিয়ে করছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। অতি সম্প্রতি ভারত সফরে এসেছিলেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী। তবে তিনি দেশে ফেরার পরই, তাঁর সরকারের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রীর নুখে শোনা গেল চিনের বন্দনা। গত কয়েক বছর ধরে, ভারতের অন্যান্য প্রতিবেশি দেশগুলোর মতোই বাংলাদেশেও প্রভাব বিস্তার করার চেষ্টা চালাচ্ছে বেজিং।

কূটনৈতিক বিশ্লেষকদের অনেকেই বলছিলেন, বাংলাদেশও নাকি ভারতের সঙ্গে ঐতিহাসিক মিত্রতা বজায় রেখেই বেশ কিছুটা চিন-ঘেঁষা হয়ে উঠছে। আর এবার এই ধারণাকেই বলা যেতে পারে মান্যতা দিলেন বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, “প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৮ জুলাই চিন সফরে যাবেন। এটি বাংলাদেশের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই সফরের মাধ্যমে দুই দেশের বন্ধুত্ব আরও অটুট হবে এবং বাংলাদেশের উন্নয়নে তা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। রোহিঙ্গা সমস্যা-সহ অন্যান্য আলোচ্য এবং সফরের অন্যান্য কর্মসূচি ঠিক করা নিয়ে দুই দেশের মধ্যে আলোচনা চলছে।” “বাংলাদেশের বিশ্বস্ত বন্ধু ভারত।

তবে, চিন আমাদের পরিকাঠামোগত উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে চলেছে।” বাংলাদেশের বিদেশ মন্ত্রীর এই অকপট স্বীকারোক্তি থেকেই স্পষ্ট, বাংলাদেশ ভারতেরও খেতে চাইছে, চিনেরও কুড়োতে চাইছে। দুই নৌকায় পা দিয়ে চলার এক বিপজ্জনক খেলায় মেতেছেন শেখ হাসিনা।

বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) বাংলাদেশের বিদেশ মন্ত্রকের এক সাংবাদিক সম্মেলনে ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, “বাংলাদেশের পরিকাঠামোগত উন্নয়নে অনেক বড় ভূমিকা নিচ্ছে চিন। ফলে, এই কমিউনিস্ট দেশটি এখন বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার।” ভারতকেও ‘বন্ধু’ বলে ভারসাম্য বজায়রাখতে চেয়েছেন তিনি।

ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী বলেছন, “ভারত-বাংলাদেশের যৌথ নদী তিস্তা। যদি প্রয়োজন অনুযায়ী ভারত আমাদের সহায়তা করতো, তাহলে সেটি ভালো হতো। তবে, বাংলাদেশের মধ্য দিয়ে ভারতের ট্রেন চলাচল করবে এবং বাংলাদেশ থেকেও ট্রেন ভারত, নেপাল আর ভুটানে যাবে। তা নিয়ে এখন কাজ চলছে।”

আরও পড়ুন ::

Back to top button