উত্তর দিনাজপুর

হাতবাধা অবস্থায় বাংলার বিজেপি বিধায়কের দেহ উদ্ধার ঘিরে চাঞ্চল্য !

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, রায়গঞ্জ: সাত সকালে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হল বিধায়কের দেহ। কোনও ঘরের মধ্যে নয়, রাস্তার পাশে থাকা চায়ের দোকানে উদ্ধার করা হয়েছে রাজ্যের বিজেপি বিধায়কের ঝুলন্ত দেহ। যা নিয়ে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে সমগ্র এলাকায়।

আলোচিত ব্যক্তি হলেন দেবেন্দ্রনাথ রায়। উত্তর দিনাজপুর জেলার বিজেপি বিধায়ক ছিলেন তিনি। পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে যে রবিবার বিকেলের পর থেকে নিখোঁজ ছিলেন বিধায়ক দেবেন্দ্রনাথ।

রাতভর কোনও খোঁজ মেলেনি। সোমবার সকালে তাঁর বাড়ি থেকে দেড় কিলোমিটার মতো দূরের গ্রাম বালিয়াতে উদ্ধার করা হয় বিধায়কের দেহ।

ওই গ্রামের একটি চায়ের দোকানের সামনে এদিন সকালে বিধায়কের ঝুলন্ত দেহ দেখতে পান স্থানীয়রা। বন্ধ চায়ের দোকানের সামনে হাত বাধা অবস্থায় ঝুলছিল দেবেন্দ্রবাবুর দেহ। খবর পেয়েই তড়িঘড়ি ঘটনাস্থলে পৌঁছায় পুলিশ।

আরও পড়ুন : করোনা আক্রান্ত তরুণী WBCS অফিসারের মৃত্যু, শোক প্রশাসন মহলে

দেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। বিধায়কের পরিবারের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে যে তাঁকে খুন করা হয়েছে। যদিও এই বিষয়ে নিশ্চিত করে এখনই কিছুই বলা সম্ভব নয় বলে জানিয়েছে পুলিশ।

২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনে হেমতাবাদ কেন্দ্র থেকে সিপিএম-র টিকিটে জিতেছিলেন দেবেন্দ্রনাথ রায়। তৃণমূলের ভরা বাজারেও বাম-কংগ্রেস জোটের প্রার্থী হিসেবে হেমতাবাদের মাটিতে ফুটতে দেননি ঘাস ফুল। এরপরে ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনের পরেই দিল্লিতে গিয়ে যোগ দেন বিজেপি শিবিরে।

বিধায়কের মৃত্যুর বিষয়ে বিজেপি সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় দেবশ্রী চৌধুরী বলেছেন, “অত্যন্ত দুঃখজনক এবং সন্দেহজনক ঘটনা। হাত বাধা অবস্থায় কোনও মানুষ কখনই আত্মহত্যা করতে পারে না।”

আরও পড়ুন : মোটা নারীকে নিয়ে ‘বিতর্কিত বক্তব্য’ দেয়ায় ধর্মযাজককে ধাক্কা!

একই সুর শোনা গিয়েছে দেবেন্দ্রনাথবাবুর স্ত্রী চাদিমা রায়ের মুখে। তিনি বলেছেন, “পরিকল্পিতভাবে খুন করে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে দেবেন্দ্রনাথ রায়কে।”

আরও পড়ুন ::

Back to top button