দিনে ২ হাজার নমুনা পরীক্ষা করবে মেডিক্যাল কলেজ, ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই মিলবে রিপোর্ট


দিনে ২ হাজার নমুনা পরীক্ষা করবে মেডিক্যাল কলেজ, ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই মিলবে রিপোর্ট

করোনার নমুনা পরীক্ষায় কয়েক কদম এগোল কলকাতা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল। এক সপ্তাহের মধ্যে দিনে দু হাজার নমুনা পরীক্ষা করার পরিকাঠামো তৈরি করছেন কলকাতা মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষ। সেইসঙ্গে ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই রিপোর্ট দেওয়ার টার্গেট নেওয়া হয়েছে। এ কথা জানিয়েছেন রোগী কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান তথা রাজ্যের মন্ত্রী নির্মল মাজি।

নির্মল মাজি বলেন, ‘প্রতিদিন দু হাজার নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট যাতে আমরা তৈরি করতে পারি সেই লক্ষ্যে কাজ শুরু হয়েছে। আশা করা যায় কয়েক দিনের মধ্যেই এই কাজ ফলপ্রসূ হবে। চেষ্টা করা হচ্ছে নমুনা সংগ্রহের ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই রিপোর্ট যাতে দেওয়া যায়।এরজন্য আর এন এ এক্সট্রাক্ট মেশিন ও আর টি-পিসিআর মেশিন আনা হচ্ছে মেডিক্যাল কলেজে।’

[ আরও পড়ুন : অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ বেলুড় মঠ ]

কোভিড হাসপাতাল মেডিকেল কলেজে হাসপাতালের নিজস্ব রোগীর বাইরেও জেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকেও কলকাতা মেডিকেল কলেজে করোনা আক্রান্ত সন্দেহে ব্যক্তির নমুনা আসেন পরীক্ষার জন্য। বেশি নমুনা জমে যাওয়ার কারণে অনেক সময় দেরি হয় পরীক্ষার রিপোর্ট পেতে। কিন্তু এবার সেই সমস্যা খানিকটা হলেও মিটবে বলে মনে করা হচ্ছে।


উল্লেখ্য, কোভিড হাসপাতাল হওয়ার পরও কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ নেই অভিযোগের শেষ নেই। পরিষেবা নিয়ে রোগীদের অসন্তোষ রয়েছে। এমন মহামারীর সময়ে রোগীদের সাহায্যার্থে যে হেল্প লাইন নম্বর চালু করেছে স্বাস্থ্য দফতর, তা অনেক সময়েই কার্যকরী নয় বলে অভিযোগ উঠেছে।

[ আরও পড়ুন : মাত্র ৪০ মিনিটেই মিলবে করোনার রিপোর্ট, পথ দেখাচ্ছে বাংলা ]

এই পরিস্থিতিতে রাজ্যের মন্ত্রী তথা রোগী কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান ডঃ নির্মল মাজি রোগী ও তাঁদের পরিবারের উদ্দেশে নিজের মোবাইল নম্বর দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ‘কোনও হেল্প লাইন নম্বরে ফোন না পেলে সরাসরি আমাকে ফোন করবেন।’

প্রসঙ্গত, সব রেকর্ড ভেঙে বাংলায় একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু ।গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ৪৮ জনের । আক্রান্ত ২৫৮৯ জন । তবে সুস্থ হয়ে উঠার হারও বেড়েছে। শনিবারের রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের বুলেটিনে প্রকাশ, বাংলায় একদিনে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২১৪৩ জন। ফলে মোট সুস্থ হয়ে উঠার সংখ্যাটা ৫০ হাজার ছাড়িয়ে গেল। এছাড়া একদিনে সর্বোচ্চ টেস্ট হয়েছে বাংলায় । গত ২৪ ঘণ্টায় ২০ হাজারের বেশি টেস্ট হয়েছে।

[ আরও পড়ুন : করোনায় মৃত্যু এসএসকেএম হাসপাতালের এক নার্সের ]

সূত্র: কলকাতা24×7

Recommended For You