ভূমি পুজোর আগের দিন বাড়িতেই হনুমান চালিশা পাঠ কংগ্রেস নেতার


ভূমি পুজোর আগের দিন বাড়িতেই হনুমান চালিশা পাঠ কংগ্রেস নেতার

আগামী ৫ অগাস্ট অযোধ্যায় রাম মন্দিরের ভূমি পুজো। আর ঠিক তার আগের দিন সন্ধ্যায় ভোপালে নিজের বাড়িতে হনুমান চালিশা পাঠের আয়োজন করছেন মধ্যপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী এবং প্রবীণ কংগ্রেস নেতা কমল নাথ। শুধু তাই নয়, ওই দিন সমস্ত কংগ্রেস নেতা, কর্মীদের বাড়িতে থেকে হনুমান চালিশা পাঠ করার জন্যও আবেদন জানিয়েছেন কমল নাথ।

কংগ্রেস মুখপাত্র ভূপেন্দ্র গুপ্তের অবশ্য দাবি, এর মধ্যে অন্যকোনও অর্থ খোঁজা উচিত নয়। যেহেতু মঙ্গলবারের দিনটি শুভ এবং কমল নাথ বজরংবলির একনিষ্ঠ ভক্ত, সেই কারণেই এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। করোনা সংক্রান্ত সমস্ত সতর্কতা অবলম্বন করেই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে বলে তাঁর দাবি।

[ আরও পড়ুন :  লাদাখে সংঘাতের আবহে আজ ফের মুখোমুখি দুই দেশ ]


এমনিতে রাম মন্দিরের নির্মাণকাজ শুরুর বিরোধিতায় সেভাবে সরব হতে দেখা যায়নি রাহুল গান্ধি সহ কংগ্রেস নেতাদের। বরং রাম মন্দির ইস্যু নিয়ে দলের নীরবতায় বিজেপি-রই সুবিধে হচ্ছে বলে দলীয় নেতাদের একাংশ প্রিয়াঙ্কা গান্ধিকে সতর্ক করেছেন বলে সূত্রের খবর। গত শনিবার কমল নাথ মন্তব্য করেন, প্রত্যেক ভারতীয়ের সম্মতি নিয়েই রাম মন্দির নির্মাণ হচ্ছে।

মধ্যপ্রদেশের কংগ্রেস সরকার ক্ষমতাচ্যুত হওয়ায় এ বছর এপ্রিল মাসে নিজের বিধানসভা কেন্দ্র ছিন্ডওয়ারায় হনুমান জয়ন্তীর অনুষ্ঠানের আয়োজন করতে পারেননি কমল নাথ। কয়েক বছর আগে সাংসদ থাকাকালীন ছিন্ডওয়ারায় ১০১ ফুট উচ্চতার একটি হনুমান মূর্তি বসিয়েছিলেন কমল নাথ।

গত মার্চ মাসে জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ার অনুগামী ২২ জন বিক্ষুব্ধ কংগ্রেস বিধায়ক দল ছাড়েন। যার জেরে সংখ্যালঘু হয়ে পড়ে মধ্যপ্রদেশের কংগ্রেস সরকার। গত ২০ মার্চ মুখ্যমন্ত্রী পদ থেকে ইস্তফা দেন কমল নাথ। এর পরই রাজ্যে ক্ষমতা দখল করে বিজেপি।

[ আরও পড়ুন : গোমাংস রাখায় পুলিশের সামনেই ট্রাকচালককে হাতুড়িপেটা ]

 

সুত্র: News18

Recommended For You