মাঝ আকাশে মার্কিন বোমারু’র দিকে ছুটে গেল একের পর এক রাশিয়ান যুদ্ধবিমান


মাঝ আকাশে মার্কিন বোমারু'র দিকে ছুটে গেল একের পর এক রাশিয়ান যুদ্ধবিমান
ফাইল ছবি

 

মাঝ আকাশে ফের উত্তেজনা। ফের একবার মাঝ আকাশে মুখোমুখি আমেরিকা এবং রাশিয়ার যুদ্ধবিমান। যা নিয়ে ব্যাপক উত্তেজনা তৈরি হয়েছে। এই ঘটনার পরেই রাশিয়া তাঁদের আকাশসীমায় যুদ্ধবিমানে নজরদারি আরও কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে।

জানা গিয়েছে, দু’টি মার্কিন গোয়েন্দা বিমানকে আকাশ সীমায় ঢোকার মুহূর্তে বাধা দিয়েছে রাশিয়ান যুদ্ধবিমান। এরপরেই রাশিয়া প্রতিরক্ষামন্ত্রকের তরফে কড়া ভাষায় এর প্রতিক্রিয়া জানানো হয়েছে। সেখানে মার্কিন এয়ারফোর্স যেভাবে উস্কানি চালিয়ে যাচ্ছে তার কড়া ভাষায় নিন্দা জানানো হয়েছে।

একই সঙ্গে বলা হয়েছে যে, গত এক সপ্তাহের কম সময়ের মধ্যে এই নিয়ে চার বার মার্কিন গোয়েন্দা বিমানকে কৃষ্ণসাগরের আকাশে রুখে দিল রাশিয়ান এয়ারফোর্স। যদিও মার্কিন এয়ারফোর্সের তরফে এই অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে। তাঁদের পালটা বক্তব্য যে, মার্কিন বোমারুগুলির দিকে বিপদজনকভাবে ধেয়ে আসছে রুশ যুদ্ধবিমান। কোনও ভাবে বিপদজনক পরিস্থিতি এড়িয়ে যান মার্কিন এয়ারফোর্সের পাইলটরা।

[ আরও পড়ুন : ঐতিহাসিক হিন্দু মন্দির রক্ষণাবেক্ষণে কোটি কোটি টাকা খরচ করছে এই দেশ ]


অন্যদিকে, রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রক আরও বলেছে, কৃষ্ণ সাগরের ওপর দিয়ে রাশিয়ার আকাশ সীমায় ঢোকার চেষ্টা করছিল দু’টি মার্কিন গোয়েন্দা বিমান। আর তা রেডারে ধরা পড়তেই মার্কিন বোমারুগুলির দিকে ছুটে যায় রাশিয়ার যুদ্ধবিমান। এর পরপরই সেটিকে বাধা দেওয়ার জন্য আরও একটি সুখোই-২৭ যুদ্ধবিমান পাঠানো হয়।

সুখোই যুদ্ধবিমানের বাধার মুখে মার্কিন দু’টি বিমানই ওই এলাকা ছাড়তে বাধ্য হয় বলে দাবি রাশিয়ার। আমেরিকার দু’টি গোয়েন্দা বিমানের একটি ছিল আরসি-১৩৫ মডেলের, আর অপরটি ছিল পি-৮ পজিডোন।

রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রক বলছে, দেশের সীমান্ত লঙ্ঘনের কোন সুযোগ মার্কিন বিমানকে দেওয়া হয়নি। ভবিষ্যতেও দেওয়া হবে না। আর এই ভুল যদি আগামিদিনে ফের হয় তাহলে রাশিয়ান এয়ারফোর্স তাঁদের ক্ষমতা দেখাতে প্রস্তুত বলে হুঁশিয়ারি রাশিয়ার।

উল্লেখ্য, কৃষ্ণ সাগরের উপর এভাবে আমেরিকা এবং রাশিয়ান যুদ্ধবিমান চলে আসার ঘটনা নতুন নয়। মাঝে মধ্যেই দুদেশ তাঁদের ক্ষমতার জাহির করে। এর আগে গত ২৮ জুলাই আমেরিকার একটি গোয়েন্দা বিমান রাশিয়ার আকাশে ঢোকার চেষ্টা করে বলে অভিযোগ করে ছিল রাশিয়া।

[ আরও পড়ুন : মার্কিন সেনাঘাঁটিতে মিসাইল হামলার প্রস্তুতি ইরানের! ]

একই ভাবে রাশিয়ান যুদ্ধবিমান মার্কিন বোমারুগুলিকে বাধা দেয় বলে দাবি পুতিনের দেশের। সামরিক পর্যবেক্ষকরা মনে করছেন, একই ভাবে মাঝে মধ্যেই আমেরিকার বোমারু ও গোয়েন্দা বিমান প্রায়ই রাশিয়ার সীমান্তের কাছে চলে আসে। রাশিয়া এসব ঘটনাকে উসকানিমূলক বলে মনে করে।

 

 

সুত্র: কলকাতা24×7

Recommended For You