ওপার বাংলা

ঘুষ গ্রহণের মামলায় তিতাসের দুই কর্মকর্তার ৫ বছরের কারাদণ্ড


ঘুষ গ্রহণের মামলায় তিতাসের দুই কর্মকর্তার ৫ বছরের কারাদণ্ড


ঘুষ গ্রহণের মামলায় ডেমরার তিতাস গ্যাস অফিসের দুই কর্মকর্তাকে ৫ বছর করে কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। রোববার (১১ অক্টোবর) ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৪ এর বিচারক শেখ নাজমুল আলম এ রায় ঘোষণা করেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন, ডেমরার তিতাস গ্যাস অফিসের উপসহকারী পরিচালক মো. কামরুজ্জামান সরকার ও টেকনিশিয়ান মো. আব্দুর রহিম। কারাদণ্ডের পাশাপাশি তাদের প্রত্যেককে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও তিন মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

রায় ঘোষণার কামরুজ্জামান সরকার আদালতে উপস্থিত ছিলেন। রায় ঘোষণার পর সাজা পরোয়ানা দিয়ে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। অপরদিকে আব্দুর রহিম অসুস্থ থাকায় রায় ঘোষণা পেছানোর আবেদন করেন তার আইনজীবী। আদালত তা নামঞ্জুর করেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, রাজধানীর দক্ষিণখানে অবস্থিত নিপ্পন সোয়েটার্সের মালিক ডি এম আসাদুজ্জামান আওলাদ তার প্রতিষ্ঠানের গ্যাস মিটার সংযোগের জন্য আবেদন করেন। এ দুই আসামি তার কাছে ১৫ হাজার টাকা ঘুষ দাবি করেন এবং জানান টাকা না দিলে মিটার সংযোগ দেওয়া হবে না। গ্যাস বন্ধ থাকায় ব্যবসার ক্ষতির কথা বিবেচনা করে তিনি টাকা দিতে রাজি হন।


আরও পড়ুন : সাহেদ চার দিনের রিমান্ডে

২০০৭ সালের ১০ জুন বেলা ৪টার দিকে কামরুজ্জামান দুই হাজার টাকা এবং ১৩ জুন বিকেলে আব্দুর রহিম সাত হাজার টাকা প্রতিষ্ঠানের সহকারী হিসাব রক্ষক মোহাম্মদ আলীর কাছ থেকে নিয়ে যান। বাকি টাকা মিটার সংযোগের দিন দেওয়ার জন্য আসামিরা চাপ সৃষ্টি করলে তিনি তা দিতে রাজি হন। আসামিরা জানান, ১৪ জুন মিটার সংযোগ দেওয়া হবে। আসাদুজ্জামান আওলাদ বিষয়টি র‌্যাব-১ কার্যালয়ে জানায়। আসামিরা মিটার সংযোগ দিয়ে ঘুষ নেওয়ার সময় র‌্যাব তাদের গ্রেপ্তার করে।


এ ঘটনায় ডি এম আসাদুজ্জামান আওলাদ ২০০৭ সালের ১৫ জুন মামলা করেন। মামলাটি তদন্ত করে ২০০৯ সালের ৮ এপ্রিল মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দুদকের সহকারী পরিচালক জাহিদ হোসেন দুইজনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। ওই বছরের ১৭ সেপ্টেম্বর আসামিদের বিরুদ্ধে চার্জগঠন করা হয়। মামলাটির বিচারকাজ চলাকালে আদালত চার্জশিটভুক্ত ৮ সাক্ষীর মধ্যে সাতজনের সাক্ষ্য গ্রহণ করেন।

 


Related Articles

Back to top button