আন্তর্জাতিক

মালয়েশিয়ায় টিকার দুই ডোজ নেয়ার পরও ৪০ স্বাস্থ্যকর্মী করোনায় আক্রান্ত

করোনার টিকার দুই ডোজ ঠিকঠাক মতো নেয়ার পরও মালয়েশিয়ায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৪০ জন স্বাস্থ্যকর্মী। মিডিয়ার কাছে শনিবার এ তথ্য দিয়েছেন দেশটির স্বাস্থ্য বিষয়ক মহাপরিচালক ড. নূর হিশাম আবদুল্লাহ। তার মতে, এসব স্বাস্থ্যকর্মী টিকা নিয়েছেন। এর মধ্যে দ্বিতীয় ডোজ নেয়ার কমপক্ষে দু’সপ্তাহ পরে করোনা পজেটিভ পাওয়া গেছে ৯ জনের শরীরে।

অন্যদিকে ৩১ জনের শরীরে এই ভাইরাস সংক্রমণ পাওয়া গেছে দ্বিতীয় ডোজ নেয়ার দু’সপ্তাহেরও কম সময়ের মধ্যে। এর বাইরে প্রথম ডোজ টিকা নেয়ার পর করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন অন্য ১৪২ জন স্বাস্থ্যকর্মী। ২৪৪ জন স্বাস্থ্যকর্মীর দেহে এই ভাইরাস পজেটিভ পাওয়া গেছে। তবে তাদেরকে টিকা দেয়া হয়নি।

আরও পড়ুন : মিয়ানমারে ২৩ হাজার বন্দিকে মুক্তি

এ খবর দিয়েছে অনলাইন চ্যানেল নিউজ এশিয়া। ড. নূর হিশাম শনিবার ফেসবুকে দেয়া পোস্টে বলেছেন, এটা পরিষ্কার যে করোনা ভাইরাসের টিকা পুরোপুরি দেয়ার পরও আমরা ভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারি। সবাই নিরাপদ না হওয়া পর্যন্ত কেউই নিরাপদ নন। তিনি আরো জানিয়েছেন, টিকা দেয়া স্বাস্থ্যকর্মীদের মধ্যে করোনা ভাইরাসে মারাত্মকভাবে সংক্রমিত হওয়ার খুব একটা লক্ষণ দেখা দেয়নি। ড. নূর হিশাম বলেন, যদিও করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আশার আলো ফুটিয়ে তোলে টিকা, তবু আমাদের ভুল করা উচিত হবে না যে, টিকা দেয়ার পর সব জনস্বাস্থ্য বিষয়ক ব্যবস্থায় ঢিল দেয়া।

দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রী ড. আধাম বাবা শনিবার জানিয়েছেন, জাতীয় টিকাদান কর্মসূচির অধীনে শুক্রবার নাগাদ মালয়েশিয়ায় মোট ৪ লাখ ৩৮ হাজার ২২০ জনকে টিকার দুটি ডোজই দেয়া হয়েছে। একই সময়ের মধ্যে ৬ লাখ ৮৭ হাজার ১৭৬ জনকে দেয়া হয়েছে প্রথম ডোজ টিকা।

সব মিলে দেশে মোট ১১ লাখ ২৫ হাজার ৩৯৬ জনকে টিকা দেয়া হয়েছে। তিনি আরো জানিয়েছেন, যে ৫টি রাজ্যে সবচেযে বেশি মানুষ টিকার প্রথম ডোজ নিয়েছেন তা হলো সেলাঙ্গর (৯৭,৪১৬), কুয়ালালামপুর (৭৮,০৮৬), সারাওয়াক (৬৭,৬২৪), জোহর (৬৩,২৯৯৫) এবং পেরাক (৫৬,২৯৫)। এ ছাড়া টিকার দুটি ডোজই সবচেয়ে বেশি মানুষ যে ৫টি রাজ্যে নিয়েছেন তার হলো সেলাঙ্গর (৬৩,১২৫), পেরাক (৪৮,৭৯৫), সাবাহ (৪৩,০৩৩), কুয়ালালামপুর (৩৮,৬৪২) এবং সারাওয়াক (৩৩,২৯১)।

আরও পড়ুন ::

Back to top button