উঃ ২৪ পরগনা

মেয়েকে সন্দেহ করার প্রতিবাদ করায় শাশুড়িকে কোপ মেরে খুন জামাইয়ের

মেয়েকে সন্দেহ করার প্রতিবাদ করায় শাশুড়িকে কোপ মেরে খুন জামাইয়ের - West Bengal News 24

ভোরের আলোয় তখনও পরিষ্কার হয়নি চারপাশ। কাজের তাগিদে বেরিয়েছিলেন মহিলা। রাস্তাতেই তাঁর সামনে এসে দাঁড়ায় জামাই। মুখ চেপে অন্যত্র নিয়ে গিয়ে ধারালো অস্ত্রের কোপ মারে পরপর বেশ কয়েকবার। ছটফট করতে করতে একসময় নিথর হয়ে যান শাশুড়ি।

ঘটনাটি ঘটেছে বারাসাতের (Barasat) আমডাঙার বোদাই গ্রামে। মৃতের নাম সন্ধ্যা কাহার। এদিন সকালে রোজকার মতোই কাজে যাওয়ার জন্য বেরিয়েছিলেন তিনি। পথে তাঁকে আটকায় তাঁর ছোট জামাই পলাশ কাহার। মুখ চেপে ধরে তাঁকে নিয়ে যায় নিজের দাদার বাড়িতে। তারপর তিন বার কোপ বসায় সে শাশুড়ির গলায়। প্রতিবেশীদের অভিযোগ, বাড়ির ছোট জামাই পলাশ তার শালার থেকে টাকা নিয়ে জমি কিনে বাড়ি করে। কিন্তু সেই টাকা সে কিছুতেই আর ফেরত দিচ্ছিল না। তা নিয়েই চলছিল পারিবারিক বিবাদ।

আরও পড়ুন : ‘সংখ্যালঘুদের সুরক্ষা দিন’, সাম্প্রদায়িক হিংসা নিয়ে বাংলাদেশ প্রশাসনকে আরজি কলকাতার ইসকনের

পলাশের সন্দেহ ছিল, তার শাশুড়ি নিজের মেয়েকে পলাশের বিরুদ্ধে উস্কানিমূলক পরামর্শ দিচ্ছে। তাই শাশুড়ির উপর ছিল তার অন্য আক্রোশ। সেই আক্রোশেরই বলি এদিন হয়ে হয়েছে সন্ধ্যা কাহারকে, জানিয়েছেন প্রতিবেশী ও আত্মীয়রা। মৃতের মেয়ে অনিতা জানিয়েছেন, তাঁর স্বামীই কুপিয়ে খুন করেছে তাঁর মাকে। তারপর আবার শাশুড়িকে নিয়ে সে পৌঁছে গেছে বারাসাত হাসপাতালেও।

কিন্তু সেখানে চিকিত্‍সকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করলে হাসপাতাল থেকেই বেপাত্তা হয়ে যায় পলাশ কাহার। পুলিশ তার খোঁজ চালাচ্ছে। মৃতের পরিবারের তরফ থেকে আমডাঙা থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

সূত্র: দ্য ওয়াল

মন্তব্য করুন ..

আরও পড়ুন ::

Back to top button