কলকাতারাজনীতি

কলকাতায় সবুজ ঝড়,’গনতন্ত্রের নিধন’, প্রতিক্রিয়া বিরোধীর!

কলকাতা পুরভোটে সবুজ ঝড়। বিরোধীদের কার্যত হেলায় উড়িয়ে বিপুল সাফল্য জোড়াফুলের। শহর কলকাতার ১৪৪ আসনের মধ্যে ১৩৪টিতেই জয় পেয়েছেন তৃণমূল প্রার্থীরা। তবে ভোটের ফল নিয়ে রাজ্য নির্বাচন কমিশন ও পুলিশকে দুষছে বিজেপি। ‘গণতন্ত্র নিধনের একটি প্রক্রিয়া সম্পন্ন হল’, পুরভোটের ফল নিয়ে প্রতিক্রিয়া বামেদের।

অবাধ ও শান্তিপূর্ণ ভোট হলে দল আরও বেশ কয়েকটি আসনে জিততে পারত বলে মনে করেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী।

তৃতীয়বারের জন্য কলকাতা শসানের ভার তৃণমূলের। পুরভোটে বিপুল জয় রাজ্যের শাসকদলের। কলকাতার ১৪৪ আসনের মধ্যে ১৩৪টিতেই বাজিমাত শসাকদলের প্রার্থীদের। তবে ভোটের এই ফল নিয়ে বেজায় ক্ষুব্ধ বিজেপি। রাজ্য নির্বাচন কমিশন ও পুলিশের ভূমিকা নিয়ে বড়সড় প্রশ্ন তুলে দিল গেরুয়া শিবির।

দলের রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদারের নিশানায় আবার জয়ী নির্দল প্রার্থীরা। তিনি এদিন বলেন, ‘নির্দলরা শাসকদলেরই প্রার্থী ছিলেন। টিকিট না পেয়ে নির্দল হিসেবে লড়ে জয়ের পর ফের তাঁরা শাসকদলেই ফিরে যাচ্ছেন।’ ভোটের এই ফল নিয়ে রাজ্য বিজেপির মুখপাত্র শমীক ভট্টাচার্য এদিন কটাক্ষ করেছেন পুলিশ ও নির্বাচন কমিশনকে।

শমীক এদিন সাংবাদিক বৈঠকে বলেন, ‘রাজ্য নির্বাচন কমিশন, কলকাতা পুলিশকে ভোটের এই ফলের জন্য অভিনন্দন। বিভিন্ন বুথে প্রার্থী, প্রার্থীর এজেন্টরা প্রহৃত হচ্ছেন। একটি বুথে সিসিটিভি ক্যামেরা ভাঙা হল, ইভিএম মাটিতে পড়ে গড়াগড়ি খেলেও নির্বাচন কমিশন কোনও বুথেই অস্বাভাবিকতা দেখতে পেল না।’

আরও পড়ুন: বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর বাড়ি ঘিরল পুলিশ

তিনি এদিন আরও বলেন, ‘নির্বাচনকে যাঁরা অবাধ ও শান্তিপূর্ণ করবেন বলেছিলেন, তাঁরা উত্‍সবের মেজাজে গোটা ভোটে ছাপ্পা চালিয়েছেন।’

অন্যদিকে, পুরভোটের ফল নিয়ে প্রদেশ কংগ্রসে সভাপতি অধীর চৌধুরী বলেন, ‘তৃণমূল ক্ষমতায় আসবে এটা সবাই জানত। তবুও ওদের প্রতিশ্রুতির উপর ভরসা রাখতে চেয়েছিলাম।

ভোটে সন্ত্রাস হবে না বলে ওরা জানিয়েছিল। তবুও ছাপ্পাভোট, বোমাবাজি, মারামারি সবই হল। অবাধ ও শান্তিপূর্ণ ভোট হলে হলে আমাদের ১০-১২টি আসন জেতার প্রবল সম্ভাবনা ছিল।’

এদিকে, বামেরাও পুরভোটের ফল নিয়ে রাজ্যের শাসকদলের তুমুল সমালোচনায় সরব। ভোট লুঠ, ছাপ্পা ভোটের অভিযোগ বামেদেরও। কলকাতা পুরভোটে গণতন্ত্রের নিধন প্রক্রিয়া সংঘটিত হয়েছে বলে অভিযোগ বামেদের। পুরভোট ঘিরে অকথ্য অত্যাচার চলেছে বলে মনে করেন প্রবীণ সিপিএম নেতা রবীন দেব।

এদিন সাংবাদিক বৈঠকে বাম নেতা রবীন দেব বলেন, ‘এটা গণতন্ত্রের উত্‍সব ছিল না। এটা গণতন্ত্রের জয় হয়নি। গনতন্ত্র নিধনের প্রক্রিয়া ছিল।’ পুরভোটের ফল নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও তাঁর ভাইপো অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে একহাত নিয়েছেন রবীন দেব। তাঁর অভিযোগ, ‘মুধ্যমন্ত্রী ও অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় পরিকল্পনা করে ভোট লুঠ করেছেন।’

উল্লেখ্য, কলকাতার ১৪৪ ওয়ার্ডের মধ্যে ১৩৪টিতেই জিতছেন তৃণমূল প্রার্থীরা। শতাংশের বিচারে তৃণমূলের প্রাপ্ত ভোট ৭২ শতাংশ। এবারের পুরভোটে বিজেপি জিতেছে ৩টি আসনে। গেরুয়া দলের প্রাপ্ত ভোট প্রায় ৯ শতাংশ। কলকাতা পুরসভার ভোটে ৪৮টি ওয়ার্ডে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে বিজেপি।

পুরভোটে শতাংশের বিচারে দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছে সিপিআইএম। বামেদের বড় শরিকের প্রাপ্ত ভোট শতাংশ প্রায় ৯.৭ শতাংশ। এবার বামেদের আসন সংখ্যা ২। কলকাতার ৬৫টি ওয়ার্ডে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন বাম প্রার্থীরা। ২টি আসন পেয়ে কংগ্রেসের প্রাপ্ত ভোট সাড়ে ৪ শতাংশের বেশি। ১৬টি ওয়ার্ডে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন কংগ্রেসের প্রার্থীরা।

 

 

 

সুত্র: ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা

আরও পড়ুন ::

Back to top button