বিনোদন

আমির খানের শৈশব ও ব্যক্তিগত জীবনের অসংখ্য বিরল মুহূর্ত

আমির খানের শৈশব ও ব্যক্তিগত জীবনের অসংখ্য বিরল মুহূর্ত

বলিউডে মিঃ পারফেক্টশনিস্ট খেতাবের অধিকারী তিনি। কেনই বা হবেন না, জীবনকে দেখার তাঁর দৃষ্টিভঙ্গিটাই যেন অন্যরকম। আর বলিউডের এই একজন নায়কই বোধহয় আপামর জনসাধারন পর্যন্ত পৌঁছতে পেরেছেন তাঁর ব্যতিক্রমধর্মী কর্মকাণ্ড দিয়ে। এই তারকার রূপালি পর্দার রূপ তো আমদের সবারই জানা। কিন্তু তাঁর ছোটবেলাটি কেমন ছিল, কিংবা একান্ত জীবন কেমন সেটা নিশ্চয়ই জানতে ইচ্ছা করে? তবে চলুন একটু ঢুঁ মেরে আসি বলিউডের জনপ্রিয় তারকা আমির খানের জীবন থেকে।

আমির খানের শৈশব ও ব্যক্তিগত জীবনের অসংখ্য বিরল মুহূর্ত

১৯৬৫ সালের ২০ মার্চ চলচ্চিত্র প্রযোজক তাহির হোসেন এবং জিনাত হোসেনের কোল জুড়ে আসে এক নবজাতক। সে আর কেউ না আজকের বলিউড হিরো আমির খান। জন্মগ্রহণের পর তার নাম রাখা হয় মোহাম্মদ আমির হোসেন খান।

আমির খানের শৈশব ও ব্যক্তিগত জীবনের অসংখ্য বিরল মুহূর্ত

এই তারকার পরিবারে রয়েছে বিখ্যাত সব ব্যক্তি। আমিরের চাচা নাসির হোসেন সে সময়ের নামিদামি প্রযোজকদের অন্যতম। এখানেই শেষ নয় আমির খানের দাদা ছিলেন ভারতের অন্যতম মুক্তিযোদ্ধা এবং দার্শনিক আবুল কালাম আজাদ।

আমির খানের শৈশব ও ব্যক্তিগত জীবনের অসংখ্য বিরল মুহূর্ত

‘ইয়াদো কি বারাত’ সিনেমায় দিয়ে প্রথম ক্যামেরার সামনে দাঁড়ান এই অভিনেতা। তবে একজন চাইল্ড আর্টিষ্ট হিসেবে।বোম্বে স্কটিশ স্কুল থেকে দশম শ্রেনী পাশ করার পর নাসির মঞ্জি কলেজ থেকে দ্বাদশ শ্রেনী পর্যন্ত পড়াশোনা করেন।

আমির খানের শৈশব ও ব্যক্তিগত জীবনের অসংখ্য বিরল মুহূর্ত

মাত্র ১৬ বছর বয়সে এই অভিনেতা ৪০ মিনিটের একটি নির্বাক চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। শুধু তাই নয় এই চলচ্চিত্রটি তার বন্ধু আদিত্য ভট্টাচার্য নির্মাণ করেন। হাই স্কুলের পড়াশোনা শেষ করে আমির তার চাচাকে প্রযোজনার কাজে সাহায্য করতেন।

আমির খানের শৈশব ও ব্যক্তিগত জীবনের অসংখ্য বিরল মুহূর্ত

১৯৮৬ সালের ১৮ এপ্রিল রিনা খানের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন আমির খান। তাদের বিয়ে পরবর্তীতে না টিকলেও এখন দুজনার মাঝে যোগাযোগ রয়েছে এবং প্রথম বিয়েতে জুনায়েদ এবং ইরা নামের দুই ছেলেমেয়ে রয়েছে এই দম্পতির।

আমির খানের শৈশব ও ব্যক্তিগত জীবনের অসংখ্য বিরল মুহূর্ত

চাচাতো ভাইবোনদের সাথে আমিরের একটি বিরল ছবি। বায়ের ছবিটি দেখুন ছিন্তে পারছেন ছোট ছেলেটি কে ? মামা আমির খানের সাথে ভাগ্নে ইমরান খান।

মন্তব্য করুন ..

আরও পড়ুন ::

Back to top button