জাতীয়

সেতুর রেলিং ভেঙে নদীতে পড়ল বাস, মৃত ৭

ঝাড়খণ্ডে একটি বাস ব্রিজ থেকে পড়ে যাওয়ার ঘটনায় কমপক্ষে সাতজন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরও বেশ কয়েকজন। দুর্ঘটনার সময় বাসটিতে ৫০ জন যাত্রী ছিল। পুলিশ জানিয়েছে, রাজ্যের হাজারিবাগ জেলায় ওই দুর্ঘটনা ঘটেছে। খবর এনডিটিভির।

এক পুলিশ কর্মকর্তা জানান, রাচিগামী একটি বাস গিরিদিহ জেলা থেকে আসছিল। সে সময় ব্রিজের রেলিং ভেঙে বাসটি নিচে পড়ে যায়। বাসটি সিওয়ানে নদীর কাছে একটি শুকনো জায়গায় পড়ার কারণে বড় ধরনের হতাহতের ঘটনা এড়ানো সম্ভব হয়েছে।

তিনি বলেন, ঘটনাস্থলেই দুজনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া আরও পাঁচজনকে আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সেখানেই তাদের মৃত্যু হয়। আহত বেশ কয়েকজনের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

দুর্ঘটনার সময় বাসের ভেতরে আটকে পড়া যাত্রীদের উদ্ধার করা হয়েছে। এক কর্মকর্তা বলেন, বাসটি যদি নদীর মাঝখানে পড়ে যেতো তাহলে আরও বেশি ক্ষয়ক্ষতি হতো। কী কারণে ওই দুর্ঘটনা ঘটেছে তা এখনও নিশ্চিত নয়। এই ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।

দুর্ঘটনায় আহত মমতা সালুজা নামের এক যাত্রী বলেন, ওই বাসটিতে শিখ তীর্থযাত্রীরা ছিলেন। তারা একটি ধর্মীয় অনুষ্ঠানে যোগ দিতে রাচির রাতু এলাকার গুরুদুয়ারার উদ্দেশে যাত্রা করেছিলেন।

আরও পড়ুন :: লিফটে আটকে শিক্ষিকার করুণ মৃত্যু

ওই দুর্ঘটনায় হতাহতদের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং প্রেসিডেন্ট দ্রৌপদী মুর্মু।

 

এক বিবৃতিতে দ্রৌপদী মুর্মু বলেন, ঝাড়খণ্ডের হাজারিবাগে বাস দুর্ঘটনায় হতাহতের ঘটনায় আমি গভীর শোকাহত। যারা এই দুর্ঘটনায় তাদের প্রিয়জন হারিয়েছেন তাদের প্রতি আমার আন্তরিক সমবেদনা। আমি আশা করছি আহতরা খুব দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠবেন।

আরও পড়ুন ::

Back to top button