জাতীয়

বৌ বদলের খেলায় স্ত্রীর ‘না’, অতপর…

বৌ বদলের খেলায় স্ত্রীর ‘না’, অতপর…

বৌ বদলের খেলায় (ওয়াইফ সোয়াপিং গেম) মেতে থাকেন স্বামী। এই খেলায় নিজের স্ত্রীকেই অংশ নিতে চাপ দিচ্ছিলেন ওই ব্যক্তি। কিন্তু স্বামীর প্রস্তাবে রাজি হননি স্ত্রী। যার কারণে স্ত্রীকে করছেন মারধর। শুধু তা-ই নয়, জোর করে স্বামীর সঙ্গে ‘অস্বাভাবিক’ শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হতে হয় ওই নারীকে। গোটা ঘটনায় শোরগোল পড়ে গিয়েছে।

ঘটনাটি ঘটেছে রাজস্থানের বিকানেরের একটি হোটেলে। তবে এই ঘটনায় মামলা রুজু হয়েছে ভোপালে। ‘ওয়াইফ সোয়াপিং গেম’-এ অংশ নিতে রাজি না হওয়ায় তার স্বামী তাকে মারধর করেছেন বলেও অভিযোগ করেছেন ওই নারী।

আনন্দবাজারের খবরে বলা হয়, বিকানেরে একটি বিলাসবহুল হোটেলের ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত অভিযোগকারী নারীর স্বামী। ভুক্তভোগীর অভিযোগ, সম্প্রতি তাকে হোটেলের ঘরে বন্ধ করে রাখেন স্বামী। তার থেকে ফোনও কেড়ে নেওয়া হয়।

এর দু’দিন পর মত্ত অবস্থায় তার স্বামী হোটেলের ঘরে যান। নির্যাতিতার আরও অভিযোগ, মদ খাওয়া, মাদক সেবন, একাধিক নারীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন হামেশাই করে থাকেন তার স্বামী।

অভিযোগপত্রে স্বামীর বিরুদ্ধে আরও চাঞ্চল্যকর অভিযোগ করেছেন নির্যাতিতা। তিনি দাবি করেছেন, শুধু নারীদের সঙ্গেই নয়, ছেলেদের সঙ্গেও শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হওয়া তার স্বামীর কাছে কোনও ব্যাপারই নয়।

‘ওয়াইফ সোয়াপিং গেম’-এ অংশ নিতে রাজি না হওয়ায় তাকে ‘রুচিহীন-অসংস্কৃত’ বলে মন্তব্য করেছেন স্বামী, এমনটাই অভিযোগপত্রে জানিয়েছেন ওই নারী।

নারীর ভাষ্য, এই খেলায় আমি যোগ দিতে চাইনি। এ কথা জানানোয় আমাকে মারধর করা হয়। আমার সঙ্গে অস্বাভাবিক ভাবে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ওই নারীর স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা রুজু করা হয়েছে। তবে এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত তাকে গ্রেপ্তারের খবর পাওয়া যায়নি।

এই ঘটনার পাশাপাশি স্বামী, শাশুড়ি ও ননদের বিরুদ্ধে যৌতুক চাওয়ার অভিযোগও করেছেন ওই নারী। তার পরিবারের থেকে ৫০ লাখ টাকার যৌতুক চাওয়া হয় বলে অভিযোগ তার। এ নিয়েও তাকে হেনস্থা করা হত বলে অভিযোগ করেছেন।

প্রসঙ্গত, ‘ওয়াইফ সোয়াপ গেম’ ঘিরে অভিযোগ নতুন নয়। এর আগেও এমন অভিযোগ প্রকাশ্যে এসেছে। বৌ বদলের অভিযোগ উঠেছিল ভারতীয় নৌ সেনার কয়েকজন অফিসারের বিরুদ্ধে। যা ঘিরে শোরগোল পড়ে গিয়েছিল।

অভিযোগ ছিল, নিজের স্ত্রীকে সহকর্মীদের হাতে তুলে দিয়ে তাদের স্ত্রীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে নাকি লিপ্ত হতেন অফিসাররা। এমনই বিস্ফোরক অভিযোগ করেছিলেন যুদ্ধজাহাজ আইএনএস কোচিতে কর্মরত এক নৌ সেনা অফিসারের স্ত্রী।

২০১৩ সালে এমন অভিযোগ প্রথমবার প্রকাশ্যে এসেছিল। কিন্তু সে সময় বিষয়টি ধামাচাপা পড়ে যায়। পরে ২০১৬ সালে নতুন করে এই অভিযোগের তদন্ত শুরুর নির্দেশ দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট।

ওই মহিলা অভিযোগপত্রে উল্লেখ করেছিলেন, ২০১২ সালের মার্চ মাসে তার বিয়ে হয়েছিল। এর পর কোচিতে স্বামীর সঙ্গে সেখানে থাকতে শুরু করেন। তখনই তাকে ‘ওয়াইফ সোয়াপ গেমে’ অংশ নিতে জোরাজুরি করেন স্বামী। অন্য পদস্থ কর্তার স্ত্রীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ মুহূর্তে স্বামীকে তিনি দেখেন বলেও দাবি করেছেন। স্বামীর বন্ধু, সহকর্মীরা তাকে যৌন হেনস্থা করেছেন বলে অভিযোগ করেন ওই নারী।

এই ঘটনায় সিবিআই তদন্তের দাবি জানিয়েছিলেন অভিযোগকারী। কিন্তু সে সময় শীর্ষ আদালতের বিচারপতি টিএস ঠাকুর, বিচারপতি আর ভানুমতি ও বিচারপতি ইউইউ ললিতের বেঞ্চ সেই আবেদন খারিজ করে তদন্তভার রাজ্য পুলিশের হাতেই রেখেছিল।

আরও পড়ুন ::

Back to top button