ঝাড়গ্রাম

তৃণমূল নেতাকে খুনের চেষ্টা, অভিযুক্ত বিজেপির প্রধান

স্বপ্নীল মজুমদার

তৃণমূল নেতাকে খুনের চেষ্টা, অভিযুক্ত বিজেপির প্রধান - West Bengal News 24

ঝাড়গ্রাম: তৃণমূলের তিন নেতা-কর্মীকে গুরুতর জখম করার অভিযোগ উঠল বিজেপির পঞ্চায়েত প্রধান সহ ৯ জনের বিরুদ্ধে। অভিযুক্তরা বিজেপির স্থানীয় নেতা-কর্মী। রবিবার সন্ধ্যায় ঝাড়গ্রাম জেলার ঝাড়গ্রাম থানার বাঁধগোড়া এলাকার ওই ঘটনায় তৃণমূলের স্থানীয় নেতা সুবীর ঘোষ সহ তিন জন গুরুতর জখম হয়েছেন। সুবীরবাবুর অবস্থা আশঙ্কাজনক।

তিনি এবং তৃণমূলের স্থানীয় দুই কর্মী প্রভাকর বেজ ও সমীরণ মাজি ঝাড়গ্রাম জেলা সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ভর্তি আছেন। চিকিৎসক জানিয়েছেন, সুবীরবাবুর আঘাত বেশি। তাঁর ডান পায়ের দু’টি হাড় ভেঙেছে। শরীরের একাধিক জায়গায় হাড়ে চিড় ধরেছে। বাঁ কাঁধের হাড়ও ভেঙেছে। এমন ঘটনায় ক্ষোভ ছড়িয়েছে বাঁধগোড়া এলাকায়। বিজেপির ক্ষমতাসীন বাঁধগোড়া গ্রাম পঞ্চায়েতের এক বিজেপি সদস্য রবিবার তৃণমূলে যোগ দেন। সুবীরবাবু ও বাঁধগোড়া অঞ্চল তৃণমূলের সহ সভাপতি গোপাল চ্যাটার্জি প্রমুখ ওই যোগদানে মুখ্য ভূমিকা নেন।

তৃণমূলের অঞ্চল সহ সভাপতি গোপাল চ্যাটার্জির অভিযোগ, সেই আক্রোশেই বাঁধগোড়া পঞ্চায়েতের প্রধান প্রদীপ ডিহিদারের নেতৃত্বে বিজেপির লোকজন রবিবার সন্ধ্যায় সুবীরবাবুর সহ তৃণমূলের কর্মীদের উপরে লাঠি-রড নিয়ে হামলা চালায়। ওই সময়ে বাঁধগোড়ার একটি চা দোকানে বসেছিলেন সুবীরবাবুরা। অতর্কিত আক্রমণে তাঁরা হতচকিত হয়ে পড়েন।

আরও পড়ুন : ১০০ দিনের কাজে আর্থিক তছরুপের অভিযোগ, কাঠগড়ায় TMC-র পঞ্চায়েত প্রধান ও উপপ্রধান

হামলা চালিয়ে বিজেপির লোকজন পালিয়ে যায় বলে অভিযোগ। পরে সুবীরবাবু সহ তিন জনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তাঁকে হাসপাতালে দেখতে আসেন বনপ্রতিমন্ত্রী বিরবাহা হাঁসদা। বিরবাহাদেবী বলেন, ‘‘বিজেপির পায়ের তলায় মাটি সরে গিয়েছে। দলের পঞ্চায়েত সদস্যদের ওরা ধরে রাখতে পারছে না।

ক্ষমতা ধরে রাখতে আমাদের কর্মীদের উপর হামলা চালিয়ে এলাকায় সন্ত্রাস রাজ কায়েম করতে চাইছে।’’ সুবীরবাবুর উপরে এমন হামলার খবর পেয়ে রাতে হাসপাতালে ছুটে যান তাঁর স্ত্রী ইন্দ্রাণী ঘোষ ও দুই ছেলে-মেয়ে। মুমূর্ষু বাবাকে দেখে কান্নায় ভেঙে পড়েন সুবীরবাবুর দুই সন্তান। সোমবার হাসপাতালের বেডে শুয়ে সুবীরবাবু বলেন, ‘‘লোহার রড দিয়ে আমাকে মারধর করা হয়েছে। সারা শরীরে যন্ত্রণা হচ্ছে।’’ স্থানীয় তৃণমূল কর্মীদের অভিযোগ, সুবীরবাবুকে খুনের উদ্দেশ্যেই পরিকল্পিতভাবে হামলা চালানো হয়।

আরও পড়ুন : নেই সরকারি বরাদ্দ, ঝাড়গ্রাম জেলার একমাত্র মূক-বধির পড়ুয়াদের স্কুল সঙ্কটে

তবে তৃণমূলের কর্মীরা চলে আসায় বিজেপির লোকজন পালিয়ে যায়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, সুবীরবাবুকে অস্ত্রোপচারের জন্য কলকাতার সরকারি হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে। তবে এদিন শারীরিক অবস্থার জন্য তাঁকে কলকাতায় নিয়ে যাওয়া সম্ভব হয়নি। অন্যদিকে, অভিযোগ অস্বীকার করে বিজেপির জে‌লা নেতা অবনী ঘোষ জানিয়েছেন, জোর করে বিজেপির এক সদস্যকে তৃণমূলে যোগ দেওয়ানোকে কেন্দ্র করে গোলমালের সূত্রপাত।

তৃণমূলের লোকেরাই হামলা চালানোয় উত্তেজনার জেরে ঘটনা ঘটেছে। পঞ্চায়েত দখলের জন্য প্রধানকে মামলায় জড়িয়ে ফাঁসানো হচ্ছে।

পুলিশ জানিয়েছে, ওই ঘটনায় একজন গ্রেপ্তার হয়েছে। বাকিদের খোঁজ চলছে।

আরও পড়ুন ::

Back to top button