জাতীয়

দুশ টাকার ছেঁড়া নোট পাল্টে দিতে অস্বীকার করায় ডেলিভারি ম্যানকে গ্রাহকের গুলি

Uttar Pradesh : দুশ টাকার ছেঁড়া নোট পাল্টে দিতে অস্বীকার করায় ডেলিভারি ম্যানকে গ্রাহকের গুলি - West Bengal News 24

দুশ টাকার ছেড়া নোট পাল্টে দেওয়া নিয়ে বাগবিতণ্ডা, সেই থেকে ডেলিভারি ম্যানকে গুলি। সম্প্রতি এমন ঘটনা ঘটেছে উত্তর প্রদেশের শাহজাহানপুরে।

গণমাধ্যম সূত্রে খবর, উত্তরপ্রদেশে ২১ বছর বয়সী এক পিজ্জা ডেলিভারি ম্যান ২০০ টাকার ছেড়া নোট পাল্টে দিতে অস্বীকার করায় দুই গ্রাহক তাকে গুলি করে আহত করে। ভুক্তভোগীর নাম শচীন কাশ্যপ। তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় দ্রুত স্থানীয় একটি জেলা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে সেখান থেকে তাকে বেরেলির একটি বিশেষ চিকিৎসা কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, তার অবস্থা আশঙ্কাজনক। অভিযুক্ত নাদিম খান (২৭) এবং তার ভাই নাঈম (২৯) এর বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হয়েছে। এই দুজনকে আটক করে তাদের কাছ থেকে দেশীয় পিস্তল উদ্ধার করা হয়েছে।

বুধবার রাত ১১টায় দোকান বন্ধ হওয়ার মুহুর্তে ফোনে পিজ্জা অর্ডার দিয়েছিলন নাদিম নামের যুবক। অর্ডার পেয়ে বরেলীতে গ্রাহকের বাড়িতে পিজ্জা দিতে গিয়েছিলেন শচীন। শচীনের সঙ্গে তার এক বন্ধুও ছিল। নাদিমকে সেই পিজ্জা দিয়ে টাকা নিয়ে চলে আসেন শচীন ও তার বন্ধু। নাদিম শচীনকে ২০০ টাকার নোট দিয়েছিলেন।

এরপর কোল্ড ড্রিংকস কিনতে রাস্তার পাশের এক দোকানে যায় শচীনরা। কোল্ড ড্রিংকস কিনতে নাদিমের দেওয়া সেই ২০০ টাকার নোট ব্যবহার করেন তিনি। কিন্তু টাকাটা ছেঁড়া বলে জানায় দোকানদার। পরে সেই টাকা পাল্টাতে ফের নাদিমের বাড়িতে যান তিনি।

নাদিমের কাছে গেলে সে শচীনকে জিজ্ঞেস করে কি হয়েছে। তখন শচীন নাদিমকে জানান যে, টাকাটা বদলে দিতে হবে। কেননা, তারা ছেঁড়া টাকা দিয়েছেন। এ কথা শুনে নাদিম দাবি করেন, টাকাটা তিনি দেননি। শচীনকে গালাগাল দেন বলেও অভিযোগ। এ নিয়ে যখন দু’জনের তর্কাতর্কি হচ্ছিল, সেই সময় নাদিমের ভাই নঈম বেরিয়ে আসেন। টাকাটা পাল্টে দেওয়ার জন্য তাকেও অনুরোধ করেন শচীন। সেসময় নঈম একটি দেশি বন্দুক বের করে শচীনকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় বলে অভিযোগ।

গুলির আওয়াজ শুনে প্রতিবেশীরা পুলিশে খবর দেন।

পুলিশ এসে শচীনকে উদ্ধার করে জেলা হাসপাতালে পাঠায়। কিন্তু অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়।

অভিযুক্ত দুই ভাইকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

আরও পড়ুন ::

Back to top button